নারকেলের দুধে ভুনা খিচুড়ি

নারকেলের দুধে ভুনা খিচুড়ি

বাঙ্গালি মাত্রই খিচুড়ি প্রেমী। আর এখন যেহেতু বর্ষাকাল চলছে, তাই ঝুম ঝুম বৃষ্টির সাথে এক প্লেট গরম গরম ভুনা খিচুড়ি হবে না, তাই কি হয় নাকি? আমাদের দেশে বর্ষার সময় এই ভুনা খিচুড়ি অত্যন্ত জনপ্রিয়। প্রায় প্রতিটি বাসাতেই ভুনা খিচুড়ি রান্না করা হয়ে থাকে। আর প্রতিটি বাসাতেই কিন্তু ভুনা খিচুড়ির নিজস্ব একটা রেসিপিও আছে। খেয়াল করলে হয়ত দেখা যাবে এই রেসিপি গুলো প্রত্যেকটাই একটি অন্যটি থেকে কিছু না কিছু ক্ষেত্রে ভিন্ন। কখনো দেখা যাবে মশলার ব্যবহারের ক্ষেত্রে ভিন্নতা আছে, কখনো বা রান্নার পদ্ধতিতে ভিন্নতা থাকে। আজ আমি আমার বাসায় যেভাবে ভুনা খিচুড়ি রান্না করা হয় তা শেয়ার করব।

আমি মূলত ভুনা খিচুড়ি নারকেলের দুধ দিয়ে রান্না করি। এর টেস্ট সাধারণ খিচুড়ি থেকে কিছুটা ভিন্ন হয়। এছাড়াও ভুনা খিচুড়ি রান্না করার জন্য আমি স্পেশাল একটা মশলা ব্যবহার করি যেটা আমি বাসাতেই বানিয়ে থাকি। এই মশলা বানাবার রেসিপিটাও আমি দিয়ে দেব। আসলে কোন রকম গুড়া মশলাই আমি বাজার থেকে কিনে ব্যবহার করিনা। তা সে খিচুড়ির মশলাই হোক কিংবা বিরিয়ানি মশলা। সবটাই আমি বাসাতেই বানিয়ে থাকি। আসুন আর দেরি না করে বাসায় কিভাবে নারকেলের দুধ দিয়ে সহজে ভুনা খিচুড়ি বানাবেন তা দেখে নেই। তবে তার আগে খিচুড়ির মশলা ও খিচুড়ি বানাতে কি কি উপকরণ দরকার হবে তা জেনে নেয়া দরকার।

নারকেলের দুধে ভুনা খিচুড়ি বানাতে উপকরণসমূহ

ভুনা খিচুড়ি মশলা বানাবার উপকরণ

  • বড় এলাচ ১টি
  • ছোট এলাচ ৪টি
  • লবঙ্গ ৪টি
  • দারচিনি ৩ টুকরো
  • তেজপাতা ১টি
  • আস্ত কালো গোলমরিচ ১০ থেকে ১২টি
  • শাহি জিরা ১/২ চা চামচ
  • কাবাবচিনি ১/২ চা চামচ
  • জায়ফল অর্ধেকটা
  • জয়িত্রি ১/২ চা চামচ

ভুনা খিচুড়ি বানাবার উপকরণ

  • পোলাও চাল ১ কাপ
  • মুগডাল ৪ টেবিল চামচ
  • পানি ১ কাপ
  • নারকেলের দুধ ১/২ কাপ
  • সয়াবিন তেল ২ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করা পেঁয়াজ ২ টেবিল চামচ
  • রসুন বাটা ১ চা চামচ
  • আদা বাটা ১ চা চামচ
  • হলুদ গুড়া ১/২ চা চামচ
  • লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুড়া ১/২ চা চামচ
  • ভুনা খিচুড়ি মশলা ১ চা চামচ
  • লবণ পরিমাণ মত
  • চিনি ১/২ চা চামচ
  • আস্ত কাঁচা মরিচ ৪ থেকে ৫টি
  • পেঁয়াজ বেরেস্তা ৩ টেবিল চামচ
  • ঘি ১ চা চামচ
  • গোলাপ জল ১/২ চা চামচ
  • কেওড়া জল ১/২ চা চামচ

নারকেলের দুধে ভুনা খিচুড়ি যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

ভুনা খিচুড়ি মশলা যেভাবে বানাতে হবে

প্রথমে একটা শুকনো ফ্রাইং প্যান গরম করতে হবে। এর মধ্যে ভুনা খিচুড়ির মশলা গুলো দিতে হবে। চুলার আঁচ একদম কম রেখে দিতে হবে। কারণ এই মশলা গুলো খুব দ্রুত পুড়ে যেতে পারে। এজন্য খুব কম আঁচে এই মশলা গুলো ভাজতে হবে। এবং অনবরত খুনতি দিয়ে নাড়তে থাকতে হবে। কিছুক্ষণ পর দেখা যাবে যে মশলা গুলো থেকে খুব সুন্দর একটা খুশবু আসা শুরু করেছে। তখন চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। মশলা গুলো একটু ঠান্ডা হয়ে গেলে ব্লেন্ডারে মিহি করে গুড়ো করে নিতে হবে। ব্যাস রেডি ভুনা খিচুড়ি মশলা। এই মশলা এয়ারটাইট কনটেইনারে ছয় মাস পর্যন্ত ভাল থাকবে।

ভুনা খিচুড়ি যেভাবে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমে মুগডাল হালকা করে ভেজে নিতে হবে। এরপর ডাল কমপক্ষে তিন থেকে চার ঘন্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। চাল ধুয়ে পরিস্কার করে নিতে হবে। চাল ভিজ্যে রাখতে হবে ২০ মিনিট।

২য় ধাপ

প্রথমে একটা কড়াতে তেল গরম করতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে পেঁয়াজ কুচি দিতে হবে। পেঁয়াজ কুচি গোল্ডেন ব্রাউন করে ভেজে নিতে হবে। পেঁয়াজ কুচি ভাজা ভাজা হয়ে গেলে এর মধ্যে রসুন বাটা ও আদা বাটা যোগ করতে হবে। ভাল করে বাটা মশলা গুলো কষে নিতে হবে যাতে করে এর কাঁচা গন্ধটা চলে যায়।

এরপর একে একে হলুদ গুড়া, মরিচ গুড়া, ভাজা জিরা গুড়া ও ভাজা ধনে গুড়া দিতে হবে। সেই সাথে ভুনা খিচুড়ি মশলাও দিতে হবে। খুব ভাল করে কষিয়ে নিতে হবে। মশলা ভাল মত কষানো হয়ে গেলে এর মধ্যে পানি ও নারকেলের দুধ দিতে হবে। পরিমাণ মত লবণ ও চিনি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

৩য় ধাপ

পানি ফুটে উঠলে ভিজিয়ে রাখা চাল ও ডাল দিতে হবে। তবে তার আগে অবশ্যই পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। চুলার আঁচ একদম কমিয়ে দিতে হবে এবং ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর ঢাকনা খুলে আস্ত কাঁচা মরিচ আর পেঁয়াজ বেরেস্তা ছড়িয়ে দিতে হবে। আবারো ঢাকা দিতে হবে। খিচুড়ি হয়ে গেলে গোলাপ জল, কেওড়া জল আর ঘি ছড়িয়ে দিতে হবে। চুলা বন্ধ করে হালকা করে নেড়ে খিচুড়ির সাথে মিশিয়ে দিতে হবে। এই বার আরো দশ মিনিট দমে রাখতে হবে। এই সময়ে ঢাকনা একদম খোলা যাবে না। এরপর একটা সার্ভিং ডিশে সাজিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *